ফেসবুকে আসক্তি, অতঃপর বিপরতে যা ঘটলো তরুণীর…

বধূ সেজে ঘরে বসে আছেন কনে। বাড়িতে চলছে অতিথিদের জন্য রান্না-বান্না। বরযাত্রীর অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে পাত্রীর বাবা ও পরিবার। চারদিকে খুশির আমেজ। হঠাৎ একটা ফোনালাপে থমকে যায় বিয়েবাড়ি।

বিয়ে ভেঙে দিয়েছে বরপক্ষ। বিয়ের দিন বরপক্ষ এমন সিদ্ধান্ত কেন নিলেন তার কারণ হিসেবে তারা বলেন, কনের ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপে মাত্রাতিরিক্ত আসক্তির কারণে এ বিয়েতে রাজি নয় পাত্র।গত বুধবার ভারতের উত্তরপ্রদেশের আমরোহাতে এ ঘটনাটি ঘটেছে জানিয়ে খবর প্রকাশ করেছে এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম।

আমরোহা থানা পুলিশ জানায়, কনে ও তার পরিবার বুধবার বরযাত্রীর জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কিন্তু সঠিক সময়ে বরযাত্রী না আসায় কনের বাবা পাত্রের বাবাকে ফোন করেন।

তখন পাত্রের বাবা জানিয়ে দেন তারা বিয়ে বাতিল করে দিয়েছেন। কারণ হিসেবে কনের হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম ও ফেসবুকে অতিরিক্ত ঝোঁক বলে জানান তারা।এ বিষয়ে আমরোহা পুলিশের কাছে এ অভিযোগ করেছে পাত্রপক্ষ।

পাত্রপক্ষের দাবি, বিয়ের লগ্নের আগেও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে চ্যাট করছিলেন কনে। তবে পাত্রীপক্ষ সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন ভিন্ন কথা। তাদের দাবি, যৌতুকের দাবি না মেটাতে পারার কারণেই বিয়ের দিন বিয়ে ভেঙে দিয়েছেন পাত্রপক্ষ।

এ মর্মে পাত্রীর বাবা উরজ মেহান্দি পাত্রের বাবার বিরুদ্ধে ৬৫ লাখ টাকা যৌতুক চাওয়ার অভিযোগ দায়ের করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *