Home / Uncategorized / রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশে ‘লঙ্গরখানা’ খুলেছে ভারতীয় শিখরা, প্রতিদিন খাবে ৩৫ হাজার

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশে ‘লঙ্গরখানা’ খুলেছে ভারতীয় শিখরা, প্রতিদিন খাবে ৩৫ হাজার

মিয়ানমার থেকে নির্যাতনের শিকার হয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়ে ‘গুরু কা লঙ্গর’ নামের একটি ক্যাম্প খুলেছে ভারতের শিখ ধর্মাবলম্বীদের স্বেচ্ছাসেবক সংস্থা ‘খালসা এইড’। যেখানে প্রতিদিন ৩৫ হাজার শরণার্থীর খাবারের ব্যবস্থা করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে সংস্থাটি।

গত বুধবার বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে অনুমতি পাওয়ার পর বৃহস্পতিবার টেকনাফের শাহপুরি দ্বীপে ওই ক্যাম্প খোলা হয় বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম দি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

এদিকে বৃহস্পতিবার প্রথম দিনে স্বেচ্ছাসেবী শিখদের লঙ্গরখানা থেকে রান্না করা ভাত এবং সবজি রোহিঙ্গা শিবিরে বিতরণ করেন তারা। তিন দিন চেষ্টার পর বাংলাদেশ-মিয়নামার সীমান্তে পৌঁছায় তারা।

এ বিষয়ে খালসা এইডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অমরপ্রীত সিং বলেন, ‘আজ থেকে আমরা খাবার রান্না ও বিতরণ শুরু করেছি। বুধবার আমরা চাল, সবজি ও আনুষঙ্গিক কাঁচামাল কিনেছি এবং বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় অনুমতি নিয়েছি। আমাদের প্রাথমিক লক্ষ্য প্রতিদিন ৩৫ হাজার খাবার সরবরাহ করা। যদিও, প্রতিনিয়ত বেড়ে চলা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দেখে মনে হচ্ছে এই খাবার যথেষ্ট হবে না।’

অমরপ্রীত আরো বলেন, ২৫ আগস্টের পর থেকে কমপক্ষে তিন লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। প্রতিদিন সবাইকে খাওয়ানো প্রাথমিকভাবে ‘গুরু কা লঙ্গরের’ জন্য দুরূহ। রোহিঙ্গারা তীব্র খাদ্য সংকটের মধ্যে রয়েছে। শিশুরা রাস্তায় খাবার ভিক্ষা করে বেড়াচ্ছে। তাদের অবস্থার দিন দিন অবনতি হচ্ছে।

এদিকে বুধবার খাবার রান্নার জন্য প্রয়োজনীয় উপকরণ স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে চড়া দামে কিনতে হয়েছে বলে অভিযোগ করেন খালসা এইডের স্বেচ্ছাসেবকরা।

সংস্থাটি বাংলাদেশ সরকারের সহায়তা নিয়ে রবিবার থেকে বাংলাদেশের সীমান্ত শহর টেকনাফে লঙ্গরখানা চালু করে। বৃহস্পতিবার তারা শাহপরি দ্বীপে এই লঙ্গরখানা খুলেছে। মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গারা নদী পথে এখানেই প্রথম নামে। তবে অমরপ্রীত সিং স্বীকার করেছেন, প্রয়োজনের তুলনায় এই সহায়তা অনেক কম।

ঢাকা থেকে ফেরিতে ১০ ঘণ্টার পথ টেকনাফ। ঢাকা থেকেই নিয়ে যাওয়া হচ্ছে লঙ্গরখানার জন্য যাবতীয় জিনিসপত্র। রাজধানী থেকে দূরত্ব এবং প্রবল বৃষ্টি কাজে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে বলে জানিয়েছে ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাটি। পরিস্থিতি যতদিন না স্বাভাবিক হচ্ছে, ততদিন লঙ্গরখানা চালু থাকবে বলে জানানো হয়েছে সংস্থার পক্ষে। খালসা এইড নামের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার অপর একটি দল দিন কয়েকের মধ্যে ত্রাণে সহায়তার জন্য পৌঁছে যাবে বলে জানানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২৪ আগস্ট রাতে রাখাইন রাজ্যে একসঙ্গে ২৪টি পুলিশ ক্যাম্প ও একটি সেনা আবাসে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। ‘বিদ্রোহী রোহিঙ্গাদের’ সংগঠন এআরএসএ এই হামলার দায় স্বীকার করে। এ ঘটনার পর মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী নিরস্ত্র রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ-শিশুদের ওপর নির্যাতন ও হত্যাযজ্ঞ চালাতে থাকে। সেখান থেকে পালিয়ে আসার রোহিঙ্গাদের দাবি, মিয়ানমারের সেনাবাহিনী নির্বিচারে গ্রামের পর গ্রামে হামলা-নির্যাতন চালাচ্ছে। নারীদের ধর্ষণ করছে। গ্রাম জ্বালিয়ে দিচ্ছে।

Check Also

মাশরাফি আগেই জানতেন সাকিব আজ ব্যাট করতে পারবে না

আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪২তম ওভারে ফিল্ডিং করতে যেয়ে বাঁহাতের আঙুলে চোট পেয়েছেন সাকিব।  মাঠ ছেড়ে …