Home / বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি / প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে শিক্ষার্থী শাওনের ‘কিউটিপি’ ফর্মুলা

প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে শিক্ষার্থী শাওনের ‘কিউটিপি’ ফর্মুলা

রকিবুল ইসলাম শাওন। থাকেন চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলায়। স্থানীয় একটি কলেজের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী তিনি। দেশব্যাপী যখন প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা, তখন তিনি তা প্রতিরোধে একটি ফর্মুলার কথা ভেবেছেন। সেটির নাম দিয়েছেন ‘কুইক ট্রেসিং প্রিন্ট’ (কিউটিপি)।

শাওন জানান, প্রশ্নফাঁসের কারণে দেশের শিক্ষাব্যবস্থা প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছে। সরকার পড়েছে সমালোচনার মুখে। লাখ লাখ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের মধ্যে হতাশা কাজ করছে। একজন ছাত্র ও দেশের সচেতন নাগরিক হিসেবে তাকেও প্রশ্নফাঁসের ঘটনা খুবই পীড়া দেয়। আর এ জন্যই তিনি চান, প্রশ্নফাঁস বন্ধ হোক। আর এ চিন্তা থেকেই তার মাথায় একটি আইডিয়া আসে। তার দাবি, ফর্মুলাটি যদি সঠিকভাবে কাজে লাগানো যায় তাহলে প্রশ্নফাঁসের সম্ভবনা শূন্য শতাংশে চলে আসবে। তিনি চান, সরকার তার ফর্মুলাটি পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে গ্রহণ করুক।

প্রশ্ন: আপনার ফর্মুলার বিস্তারিত জানতে চাই।

শাওন: দেশের প্রখ্যাত শিক্ষাবিদরা সরকারকে একটি সুপারিশ দিয়েছেন। তারা ওই সুপারিশে বলেছেন, পরীক্ষার দিন সকালে, পরীক্ষার ঠিক আগমুহূর্তে পরীক্ষাকেন্দ্রেই প্রশ্নপত্র ছাপতে হবে। আর সেই প্রশ্নপত্রটি প্রিন্টার বা ফটোকপি মেশিনের মাধ্যমে প্রিন্ট করা হবে। আমার ফর্মুলাটি এখান থেকেই শুরু, কিন্তু কিছুটা ভিন্ন পন্থায়। আমিও চাই প্রশ্নপত্র পরীক্ষাকেন্দ্রেই ছাপানো হোক। তবে কোনও ইলেট্রনিক প্রিন্টার বা ফটোকপি মেশিনের মাধ্যমে নয়। প্রিন্টার বা ফটোকপি মেশিনের মাধ্যমে প্রশ্নপত্র প্রিন্ট করার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ। এছাড়া যান্ত্রিক ত্রুটির কারণেও প্রিন্টার হঠাৎ বিগড়ে যেতে পারে। দেশের সব জায়গায় বিদ্যুৎও নেই। আর এ কারণে আমার ফর্মুলা ব্যবহার করা যেতে পারে। এতে বিদ্যুতের প্রয়োজন নেই বললেই চলে। পরীক্ষার দিন সকালে নির্দিষ্ট সময়ে প্রশ্নপত্র সার্ভার থেকে ডাউনলোড ও একবার প্রিন্ট করতে যতটা সময় বিদ্যুৎ থাকা প্রয়োজন ততটা সময় এবং সেই প্রশ্নপত্র ট্রেসিং ফ্রেমে সংযোজন করতে পাঁচ থেকে সাত মিনিট বৈদ্যুতিক আলো বা রোদের উত্তাপ হলেই চলবে। অর্থাৎ সর্বোচ্চ ১৫ মিনিট বিদ্যুৎ লাগবে। ওই সময়ের জন্য সৌরবিদ্যুৎ বা আইপিএস হলেও চলবে।

প্রশ্ন: কিভাবে কাজ করবে আপনার কিউটিপি ফর্মুলা?

শাওন: প্রিন্টার মেশিন বা ফটোকপিতে প্রশ্নপত্র প্রিন্ট করতে যত সময় লাগবে সেই একই সময়ে আমার এ ফর্মুলায় সব প্রশ্নপত্র ছাপানো সম্ভব। এতে বেশ কয়েকটি সুবিধা রয়েছে। সবচেয়ে বেশি যে সুবিধা হবে তা হলো সরকারের কোটি কোটি টাকা বাঁচবে। প্রশ্নফাঁসও হবে না।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বা বোর্ডে অটোমেশন পদ্ধতিতে প্রশ্নপত্র প্রণয়ন হবে পরীক্ষার আগেরদিন রাতে অথবা পরীক্ষার দিন ভোরে। সেই প্রশ্নপত্রটি সকালে পরীক্ষা শুরুর অন্তত দুই ঘণ্টা আগে ই-মেইলের মাধ্যমে কেন্দ্রে পৌঁছাতে হবে। আর তখনই একটি কম্পিউটার বা ল্যাপটপ ও প্রিন্টারের মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ট্রেসিং পেপারে প্রিন্ট করতে হবে। এরপর সেই ট্রেসিং পেপারে প্রিন্ট করা প্রশ্নপত্রটি ট্রেসিং ফ্রেমে বসিয়ে হাতের মাধ্যমে প্রিন্ট করা হবে। একটি কেন্দ্রে যতগুলো প্রশ্নের প্রয়োজন হবে ততগুলোই প্রিন্ট করা সম্ভব।

এ ফর্মুলায় একজন প্রতি মিনিটে পাঁচটি প্রশ্ন প্রিন্ট করতে পারবেন। এর মানে এক ঘণ্টায় অন্তত ৩০০টি প্রশ্ন প্রিন্ট করা যাবে। তাহলে দুই ঘণ্টায় পারবেন ৬০০টি। ধরে নেওয়া যাক, কোনও কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা চার হাজার। তাহলে চার হাজার পরীক্ষার্থীর জন্য দুই ঘণ্টায় সব প্রশ্নপত্র ছাপানো সম্ভব। লোকবল বাড়িয়ে দিলেই সেটা সম্ভব। সাত জনকে যদি একই সময়ে প্রশ্নপত্র প্রিন্ট করতে দেওয়া যায় তাহলে দুই ঘণ্টায় তারা চার হাজার ২০০টি প্রশ্ন প্রিন্ট করতে পারবেন।

প্রশ্ন উঠতে পারে, এত লোকবল কোথায় পাওয়া যাবে? এবং এত মানুষ প্রশ্নপত্র হাতে পেলেও তো দুই ঘণ্টা আগে প্রশ্নপত্র ফাঁস করা সম্ভব। আমার যুক্তি হলো– সরকার পরিকল্পনা করছে কেন্দ্রেই প্রিন্টার দিয়ে প্রশ্নপত্র প্রিন্ট করা হবে। প্রিন্ট করতে হলে অবশ্যই একটি গোপন কক্ষ লাগবে। আমার পদ্ধতি ব্যবহার করলেও গোপন একটি কক্ষ লাগবে। ওই কক্ষে সকাল ৭টায় সবাই মোবাইলসহ সব ধরনের বিদ্যুতিক ডিভাইস ছাড়া প্রবেশ করবেন এবং পরীক্ষা শেষ হওয়ার পরে বের হবেন। আর ওই কক্ষের সামনে প্রয়োজনীয় সংখ্যক পুলিশ সদস্য রাখতে হবে। প্রয়োজনে একজন ম্যাজিস্ট্রেটকে দায়িত্ব দিতে হবে নজরদারির জন্য। এছাড়া একটি এলাকায় যেহেতু কয়েকটি স্কুলের পরীক্ষার্থীদের নিয়ে একটি কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়, সেহেতু ওই সব স্কুলে যারা দাপ্তরিক কাজ করেন তাদের কেন্দ্রে এনে প্রিন্টের কাজটি করানো সম্ভব। ট্রেসিং ফ্রেমে প্রিন্ট করা খুবই সোজা।

পরীক্ষা শুরুর অন্তত ১৫ মিনিট আগে প্রশ্নপত্র প্রিন্ট শেষ হলে তখনই শিক্ষার্থীর সংখ্যা অনুযায়ী সেগুলো প্যাকেটে ভরতে হবে এবং দায়িত্বরত শিক্ষকরা প্যাকেট নিয়ে নিজেদের কক্ষে যাবেন।

প্রশ্ন: এ পদ্ধতিতে কেমন খরচ হবে?

শাওন: খরচ খুবই কম হবে। ট্রেসিং ফ্রেম, কালির খরচ পড়বে সর্বোচ্চ পাঁচশ’ থেকে ছয়শ’ টাকা। আর প্রশ্ন ছাপানোর কাগজের জন্য এখন যেমন খরচ হয়, তেমনই থাকবে। এছাড়া এখন তো প্রতিটি স্কুল-কলেজেই সরকার কম্পিউটার ও প্রিন্টার দিয়েছে। সুতরাং সেগুলো কেনার আলাদা কোনও ঝামেলা নেই। বাড়তি আর কোনও খরচ নেই। ফলে ফর্মুলাটি যদি সরকার গ্রহণ করে তাহলে আমি মনে করি, প্রশ্নফাঁস তো হবেই না। এর সঙ্গে খরচও অনেক কমে যাবে।

শাওনের এ ফর্মুলার বিষয়ে শিক্ষাবিদের মন্তব্য

জানতে চাইলে বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও বুয়েটের অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেন, ‘সরকারের কাছে আমাদের সুপারিশ ছিল, প্রশ্ন যত দেরিতে ছাপানো যাবে ততই প্রশ্নফাঁসের ঝুঁকি কমবে। আর এ জন্যই বলা হয়েছিল কেন্দ্রেই প্রশ্নপত্র ছাপানো হোক। এর জন্য যা যা করণীয় তা সরকার করবে। এখন সেই প্রশ্নের প্রিন্ট সরকার প্রিন্টার দিয়ে করাবে নাকি ট্রেসিং দিয়ে করাবে, সেটা পরবর্তীতে অ্যাপলাই করে সরকার ঠিক করবে কোনটা বেশি ভালো। তবে ট্রেসিং প্রিন্ট পদ্ধতি ডিজিটাল প্রিন্টারের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা যায়।’

Check Also

ফেসবুকের বিরুদ্ধে মামলা!

ফেসবুকের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন কম্বোডিয়ার বিরোধী দলের নেতা স্যাম রেইনসির আইনজীবী রিচার্ড রোজার। যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *