Home / Uncategorized / বিট কয়েনের মতই এবার আয় করুন ডগি কয়েন! সাথে থাকছে ডগি কয়েন কি, কিভাবে কাজ করা যাবে, উইথড্র পদ্ধতিসহ একাধিক অলোচনা সমূহ!! এক টিউনেই সবকিছু!!!

বিট কয়েনের মতই এবার আয় করুন ডগি কয়েন! সাথে থাকছে ডগি কয়েন কি, কিভাবে কাজ করা যাবে, উইথড্র পদ্ধতিসহ একাধিক অলোচনা সমূহ!! এক টিউনেই সবকিছু!!!

ফ্রিতে আয় করুন Dogecoin, বিটকয়েন এর বিকল্প উপায়ে !
1 Bitcoin =$5,641 যা আকাশ ছুয়ার মত।
সময় থাকতে কিছু Dogecoin জমিয়ে রাখুন যা আগামি ২-৫ বছর পর 1 Dogecoin
সমান $1 হবে। এখন 1000 Dogecoin সমান $1।
DogeCoin এর দাম এখন খুবই কম।
কিন্তু একসময় দাম হয়তো ১ ডলারে চলে যেতে পারে।
তাই কিছু কয়েন জমিয়ে রাখা খুবই বু্দ্ধমানের কাজ। ফ্রীতেই কিছু কয়েন জমিয়ে রাখতে পারেন
ধরেন আপনি ফ্রীতে ৫০০০ কয়েন জমালেন। যখন ১ কয়েন সমান ১ ডলার হবে তখন আপনি ৫০০০ ডলারের মালিক।
মানে প্রায় ৪ লাখ টাকা। তাই অবহেলা না করে এখনই শুরু করুন।
প্রথমেই http://www.dogechain.info তে একটা একাউন্ট খুলুন। সেখান থেকে একটা ওয়ালেট এড্রেস পাবেন।
তারপর http://freedoge.co.in এই লিংকে ক্লিক করে একাউন্ট খুলে নিন।
Reffer Id : 1286380
ব্যস ঘন্টায় ঘন্টায় 0.75/150000 কয়েন ফ্রীতে নিয়ে নিন।
১০ সেন্ট এর বিটকয়েন যদি ৯০০ ডলার হতে পারে তাহলে Dogecoin ১ ডলারে যাওয়া অসম্ভব নয়।
তাহলে আর দেরি না করে এখন থেকেই Dogecoin আয় করুন। যত দেরি করবেন ততই আপনার লস হবে।

Bitcoin ধাতব কোনো মুদ্রা নয়, তবে বিশ্বের কয়েকটি দেশে প্রচলিত রয়েছে অস্পৃশ্য ও মুক্ত এই সাংকেতিক [ক্রিপ্টোগ্রাফিক] কয়েন। প্রচলিত মুদ্রার মতোই ব্যবহৃত হচ্ছে মূল্য পরিশোধ কাজে। অথচ টাকা বা সোনার মতো বাস্তব কোনো অস্তিত্ব নেই এই ভার্চুয়াল মুদ্রার। তার পরও যুক্তরাষ্ট্র, চীন, যুক্তরাজ্য, রাশিয়া, জার্মানি ও ভারতের মতো বিশ্বের বেশ কিছু দেশে বিকেন্দ্রীকরণ পদ্ধতির এই ডিজিটাল মুদ্রাব্যবস্থার প্রচলন শুরু হয়েছে। অনলাইনে পণ্যমূল্য পরিশোধ করে বিট কয়েনের মতো Lite coin, Pear Coin, Ripple, Dark Coin, Dogecoin কয়েন- এমন অন্তত ডজনখানেক ভার্চুয়াল কয়েন দিয়ে কেনা যাচ্ছে প্রয়োজনীয় পণ্যও। অনলাইন থেকে পণ্য ক্রয়ে এই মুদ্রার কার্যক্রম শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশেও। যাইহোক বিট কয়েন বিষয় নিয়ে আমি টিটিতে বেশ কয়েকটি টিউন করেছিলামাম।সুতরাং নতুন করে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে চাচ্ছি না। বিট কয়েন সম্পর্কে পূর্বের টিউনগুলোর রিভিউ দেখতে পারেন এখানে

Dogecoin কি?

Dogecoin একটি নতুন মজা, এবং ডিজিটাল মুদ্রার দ্রুত বর্ধনশীল ফর্ম. ডিজিটাল মুদ্রার এই ফর্ম “crypto currency” বলা হয়; ডিজিটাল মুদ্রা একটি টাইপ. Crypto currency বিকেন্দ্রীভূত, সম্পূর্ণরূপে বেনামী, এবং অত্যন্ত নিরাপদ

Dogecoin একটি আপনার কম্পিউটারে মানিব্যাগ, আপনার স্মার্টফোন, বা একটি ওয়েবসাইটের সাথে ব্যবহার করা হয়। আপনি পণ্য ও সেবা কিনতে, অথবা অন্যান্য মুদ্রা (অন্যান্য crypto currencies বা মার্কিন ডলার মত প্রথাগত একক উভয়) জন্য এটা ট্রেড করার জন্য এটি ব্যবহার করতে পারেন। Dogecoin জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যবহারসমূহ এক সৃষ্টি বা মহান কন্টেন্ট ভাগ যারা সহকর্মী ইন্টারনেট-goers “tipping” হয়। সমস্ত ইন্টারনেট জুড়ে ব্যবহার করা যেতে পারে যে প্রকৃত মূল্য সঙ্গে আরো একটি অর্থপূর্ণ “জীবন” বা upvote, হিসাবে এটা মনে করা হয়। অস্ট্রেলিয়ার একটি ব্র্যান্ড অ্যান্ড মার্কেটিং বিশেষজ্ঞ এবং আসলে সফলভাবে বছরের দুই সর্বশ্রেষ্ঠ ঘটনা মিলিত হয়েছে পূরণ না যারা পোর্টল্যান্ড, আকরিক একটি প্রোগ্রামার যেখানে উইকিপিডিয়া পাওয়া যাবে এবং ডোজ ফল স্বরুপ নাম হয়েছে Dogecoin. আর মানুষ আসলে অন্য মুদ্রার মতই নেটে এটি ব্যবহার করছে। সাধারন ভাবে বলা যায় অনেকটা বিট কয়েনের মতই Crypto currency হল Dogecoin।

 

Dogecoin এর নাম করন!

ডগি কয়েনের নাম করন কিভাবে হল এবং কেনইবা আবিষ্কার হল তার সুনিদিষ্ট ব্যাখ্যা করা যাবে না। তবে যতটুকু জানা যায়, আপনি ডোজ মেমে সাথে পরিচিত না হন, তাহলে এটা ব্যাখ্যা করা কঠিন – আপনি সাজানোর শুধু এটা নিজেকে দেখতে আছে. মূলত, ইন্টারনেটে কেউ কমিক সান্স চিত্রের একটি devastatingly চতুর Shiba Inu কুকুর কাল্পনিক সিনট্যাক্স চিন্তা বুদবুদ টিউনিং শুরু করেন. মেমে উপর প্রকারভেদ এই মত চেহারা। Dogecoin তার লোগো হিসাবে “ডোজ” ইন্টারনেটের মেমে থেকে Shiba Inu কুকুর একটি উপমা সমন্বিত একটি crypt currency হয় যাহা  একটি ইন্টারনেট tipping সিস্টেম হিসাবে  ডিসেম্বর 8, 2013 তে চালু করা হয়।

Dogecoin বনাম Bitcoin. কোনটি এগিয়ে?

যেহেতু পূর্বেই বলেছি Bitcoin ব্যতিত বেশ কয়েকটি crypto currency মুদ্রা চালু হয়েছে তার মধ্য একটি হচ্ছে Dogecoin। বিট কয়েনের মতই এর কাজের ধারাও হুবুহ একই রকম। অনেকেই কাজ করছেন। তবে সত্যি কথা বলতে বিট কয়েনের জনপ্রিয়তার মত Dogecoin এখনো অনেকটা পিছিয়ে আছে। হয়ত আগামী কয়েক বছরের মধ্যই জনপ্রিয়তার দিকে যাবে। তথাপি আরেকটি মজার ব্যাপার হল আপনার Dogecoin কয়েন আয়কে কনভাট করে Bitcoin এ- রুপান্তর কিংবা ওয়ালেটে প্রেরন করতে পারবেন। অথবা কোন কনভার্ট না করে ডগি কয়েন ওয়ালেটে সংরক্ষণ করতে পারবেন। বর্তমানে 1 Doge = 0.00000048 BTC = 0.00012 USD. সুতরাং বুঝা যাচ্ছে বিট কয়েন মূল্য হইতে কিছুটা পিছিয়ে আছে। তাছাড়া এটিও অনেকটা শেয়ার বাজারের মত, প্রতিনিয়ত রেটিটেন্স উঠানামা করে। Dogecoin এর একটি দ্রুত প্রাথমিক মুদ্রার উৎপাদন সময়সূচী আছে যেখানে প্রতি বছরে একটি অতিরিক্ত 5.2 বিলিয়ন কয়েন সঙ্গে যোগ হয়। 2014 সালের শেষ নাগাদ এর প্রচলন প্রায় 100 বিলিয়ন দাড়িয়েছিল।. Dogecoin এর বাস্তবায়ন বিভিন্ন পরামিতি দ্বারা Bitcoin থেকে পৃথক. Dogecoin এর ব্লক সময় Bitcoin এর ৩.৫ মিনিট উল্টোদিকে 1 মিনিট.

Dogecoin সাইটে কাজ করতে কি যোগ্যতা সমূহ প্রয়োজন?

Dogecoin দিয়ে শুরু হচ্ছে Dogecoin ব্যবহার শুরু করা খুব সহজ যা বিট কয়েন সাইটের কাজের মতই। প্রথমত একটি Dogecoin ওয়ালেটে লাগবে > ভাল Dogecoin একচেঞ্জের কিছু Dogecoin সাইট > আপনার Dogecoin এর একটি আইডি/ইমেইল।

কাজের কৌশলঃ

প্রথমে আপনার একটি Dogecoin ওয়ালেট ঠিকানা লাগবে যেখানে আপনার Dogecoin আয়সমূহ উক্ত সাইটে জমা হবে। প্রয়োজনে সেখান হইতে কনভার্ট কিংবা উইথড্রসহ যাবতীয় ট্রানজেকশন করতে পারবেন। আসলে কাজটা হল বিটকয়েন সাইটের ওয়ালেট কয়েনবেইজ ঠিকানার মতই একটি আইডি। উল্লেখ্য Dogecoin আয়সমূহ কোনভাবেই বিটকয়েন ওয়ালেটে জমা হবেনা কিংবা সেন্ড করা যাবে না। সুতরাং এর নিজস্ব একটি ওয়ালেট ওপেন করতে হবে। এবং Dogecoin সাইটে কাজ করার পূর্বশর্ত হল Dogecoin ওয়ালেট ঠিকানা। Dogecoin সাইটের বেশ কয়েকটি ওয়ালেট ঠিকানা আছে। তার মধ্য জনপ্রিয় হল Dogechaininfo তাহলে এবার দেখিয়ে দিই কিভাবে একটি ওয়ালেট ওপেন করবেন?

১। প্রথমে প্রবেশ করুন এখানে

২। নিচের মত চিত্র আসবে সেখানে Create Wallet এ-ক্লিক করুন

৩। নতুনভাবে একটি চিত্র আসবে। সেখানে আপনার ইমেইল ও পাসওয়ার্ড ইনপুট করে Create Wallet এ-ক্লিক করুন।> ইমেইলে বার্তা যাবে সেটি ভেরিফাই করুন।

সতর্কতা

আপনার মেইলে Dogecoin ওয়ালেটে লগইন করার একটি এড্রেস/কোড যাবে। সুতরাং পাসওয়ার্ডসহ সেটি আপনার ডায়েরী, ইমেইল কিংবা অন্য কোথাও টুকে রাখুন, ইমেজ করে রাখুন। হারিয়ে গেলে কিন্তু মহা সমস্যা! কোনভাবেই রিকভার করতে পারবেন না। তাছাড়া Dogecoin সাইট ও ওয়ালেটে লগিন করতেও কাজে লাগবে।

৪। ব্যাস এবার আপনার Dogecoin ওয়ালেট লগিন করলে নিম্নরুপ চিত্র আসবে। সেখানে আপনার যাবতীয় ট্রানজেকশন জমা ও হিষ্টরি দেখতে পাবেন। সুতরাং কয়েনবেইজ সাইটের মতই এই ওয়ালেট হইতে ডগি কয়েন সেন্ড/রিসিভ করতে পারবেন। এবং সেই সাথে ডগিকয়েন ওয়ালেট হইতে আপনার ৩৪ বর্ণের সংখ্যা/ঠিকানাটি নোট প্যাডে/ওয়ার্ডপ্যাডে কপি করে নিন। পরবর্তী ধাপে কাজে লাগাতে হবে।

কিভাবে Dogecoin সাইটে কাজ করবেন?

ব্যাস ওয়ালেট তো ওপেন করলেন! এবার ডগি কয়েন সাইটে সাইনআপ করার পালা। ডগি কয়েন সাইটে আয় করার অনেকগুলো সাইট আছে তার মধ্য জনপ্রিয় সাইট হল ডগিকয়েন ইন। তাহলে সাইনআপ করতে ক্লিক করুন এখানে

১। নিচের মত চিত্র আসবে। সেখানে Email Address, Password, Dogecoin Address টাইপ করে Signup বাটনে ক্লিক করলেই হবে। এবং আপনার মেইলটি চেক করুন। অতপর লগইন করুন।

(বি:দ্র: Dogecoin Address এ- আপনার ডগিকয়েন ওয়ালেটের ৩৪ বর্ণের সংখ্যাটি ইনপুট করতে হবে। যাহা প্রথমদিকে ওপের করেছিলেন)

২। লগইন করলে নিচের চিত্রটি পাবেন

এখানে কাজের কৌশল হুবহু বিটকয়েন ইন সাইটের মতই কার্বন কপি। প্রতি ১ ঘন্টাতে ক্যাপচা পূরন করতে হবে। এবং প্রতি সোমবারে অটোমেটিক পে করে। সুতরাং আর নতুন করে বলার কিছুই নাই। এবার নিজেই যাবতীয় কাজ করতে পারবেন।

পেমেন্ট পাবার প্রমানাদি চিত্র

যেহেতু নিজের ব্যস্ততা, ছোটখাট ফ্রিল্যান্স ও ব্লগিং করার কারনে এই সকল সাইটে তেমন সময় দিতে পারি না। তবে এই টিউন লেখার পূর্বে কাজ করে পরীক্ষা করে দেখেছি। এবং ডগি কয়েনের উপার্জন ডগিকয়েন ওয়ালেটে ৬ বার ট্রানজেকশন করেছি। ট্রানজেকশনের চিত্র নিম্নরুপ-

 

ডগি কয়েনকে কিভাবে আপনি বিটিসি কিংবা অন্য কোন মুদ্রাতে কনভার্ট করবেন?

হ্যা এই রকম বেশ কিছু সাইট আছে যেমন এক মুদ্রা হইতে খুব সহজেই  অন্য মুদ্রা যেমন বিট কয়েন, লাইট কয়েনে রুপান্তর করা যাবে। এমনকি ডলারে কনভার্ট করতে পারবেন। তবে তার জন্য নিদিষ্ট পরিমাণ চার্জ আছে। আলফাক্যাশিয়ার, গোল্ড ডাস্ক সাইটের মত জনপ্রিয় সাইটে ডগি কয়েনকে যে কোন মুদ্রা/ডলারে রুপান্তর করতে পারবেন। অবশ্য যদি সুযোগ হয় তাহলে পরবর্তীতে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। তবে তার পূর্বে আপনাকে এখানে কাজ করতে হবে, ভাল পরিমান ডগি কয়েন অর্জন করতে হবে।

শেষ আলোচনা

টিউনের আলোচনার একদম শেষ সময়ে।  আশা করি উপরোক্ত আলোচনা হতে বিট কয়েনের ন্যায় ডগি কয়েন সম্পর্কে সম্যক ধারনা পেয়েছেন এবং আশা করি এখন হতে যাবতীয় কাজ গুলো নিজেই করতে পারবেন। তথাপি ডগি কয়েন সম্পর্কে টিউন করার উদ্দেশ্য হল এই বিষয় সম্পর্কে ধারনা লাভ করা এবং যে ডগি কয়েনগুলো আয় করবেন তা পরবর্তীতে কনভার্ট করে যে কোন মুদ্রাতে যেমন বিটকিয়েনে রুপান্তর করে বিটিসি আয় বৃদ্ধি করা। অপরদিকে যারা কোন ফ্রিল্যান্স সম্পর্কে কাজ জানেন না কিন্তু নেটে একটু হলেও নিয়মিত সময় দেন তারা কিছুটা মামুলি আয় করতে পারবেন। তথাপি  মানে এই নই যে, আমি বিট কয়েন/ডগি কয়েন সাইটে সর্বদা কাজ করার জন্য প্রমোট করছি?? আমি পূর্বের টিউন সহ পুনরায় রিপিট হিসাবে বলছি আপনি এই সকল কাজ করার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্স শেখার চেষ্টা করুন। টিটি সহ বিভিন্ন ব্লগ সাইটে সার্চ করলেই অনেক টিউটোরিয়াল পাবেন অপরদিকে বাজারে টিউটোরিয়াল ভিডিও, প্রশিক্ষণ সেন্টার, এবং সহায়িকা বইয়ের তো অভাব নাই। সুতরাং আপনার যখনই সময় হবে একটু করে ফ্রিল্যান্স জানার ও শেখার চেষ্টা করুন। সবাই ভাল থাকবেন, পাশের মানুষটিকে ভাল রাখবেন।

Check Also

মাশরাফি আগেই জানতেন সাকিব আজ ব্যাট করতে পারবে না

আজ শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪২তম ওভারে ফিল্ডিং করতে যেয়ে বাঁহাতের আঙুলে চোট পেয়েছেন সাকিব।  মাঠ ছেড়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *